নির্বাচনের ফল ঘোষণার পরেই নানা জায়গায় শাসক দলের হামলার অভিযোগ

আজকের খবর বিশেষ খবর রাজনীতি

Last Updated on 5 months by admin

নিজস্ব প্রতিনিধি, ৩ মে,২০২১ :

নির্বাচনের ফলাফল বের হওয়ার পর থেকেই জেলায় জেলায় রাজনৈতিক হিংসার ছবি আসছে। শাসক দলের বিরুদ্ধে প্রচুর বাড়িঘর-দোকান ভেঙেও দেওয়ার অভিযোগ আসছে।

বীরভূম, বর্ধমান, হুগলী, বাঁকুড়া, মালদা সহ বিভিন্ন জায়গা থেকে তৃণমূল কংগ্রেসের দ্বারা আক্রান্ত হওয়ার অভিযোগ আনছে বিভিন্ন বিরোধী দল। এমনকি করোনা আক্রান্ত রোগীর কাছে ওষুধ পৌঁছে দিতে যাওয়া ‘রেড ভলান্টিয়ার্স’ কর্মীর ওপর আক্রমণের অভিযোগও উঠেছে।

গতকাল সুন্দরবনের হিঙ্গলগঞ্জ বিধানসভার হেমনগরে তৃণমূলের ‘গুন্ডাবাহিনী’ মজদুর ক্রান্তি পরিষদের (MKP) সদস্যদের ওপর আক্রমণ চালায় বলে অভিযোগ। দোকান, বাড়িঘর ভাঙচুর হরা হয়। এমনকি থানায় অভিযোগ জানাতে গেলে সেই গুন্ডা বাহিনীর দ্বারা বাধাপ্রাপ্ত হন MKP-র বর্ষীয়ান সদস্য পরিমল মিস্ত্রী। তাঁকে মারধর করাও হয় বলে অভিযোগ।

আম্ফানের পর থেকে MKP সুন্দরবনের বিভিন্ন দ্বীপে ত্রাণ দেওয়ার পাশাপাশি সরকারি ত্রাণের ক্ষেত্রে পঞ্চায়েতের দুর্নীতির বিরুদ্ধে লড়াই করেছিল বলে তারা জানায়। এছাড়া দীর্ঘদিন ধরে তাঁরা এই এলাকায় প্রান্তিক কৃষকদের দাবী নিয়ে, পঞ্চায়েতের দুর্নীতির বিরুদ্ধে বিভিন্ন লড়াই আন্দোলন করে যাচ্ছেন বলে জানান। তাই তখন থেকেই শাসক দলের হামলার মুখোমিখি হয় তাদের স্থানীয় সদস্যরা। ভোটের পরে ক্ষমতায় ফিরে এসে তাই আবার অত্যাচার নামিয়ে এনেছে বলে MKP অভিযোগ করে।

MKP-র সাধারণ সম্পাদক, আভাস মুন্সী বলেন, “রাজ্যের বুকে তৃতীয় তৃণমূল সরকার গড়ার সম্ভাবনা দেখা দিতেই বিভিন্ন জায়গায় শাসকদলের হামলা শুরু হয়েছে বিরোধীদের ওপর। সুন্দরবনের হেমনগরে আমাদের সমর্থকদের ওপর গতকাল রাতে হামলা চালিয়েছে তৃণমূল দুষ্কৃতীরা। একথা স্পষ্ট যে এদেশের কোথাও শ্রমজীবী মানুষের বন্ধু সরকার নেই। শ্রমজীবী মানুষের জন্য শিল্প-কৃষি, সকলের জন্য প্রকৃত স্বাস্থ্য-শিক্ষা-কর্মসংস্থান, দলিত-আদিবাসী-নারী সমাজের প্রান্তিক মানুষদের প্রকৃত উন্নয়ন, পরিবেশের সুরক্ষা, রাজনৈতিক বন্দিমুক্তি, গণতান্ত্রিক অধিকারের সুরক্ষা ও সম্প্রসারণ ইত্যাদি দাবি নিয়ে আমাদের পথেই থাকতে হবে আগামীদিনে। এক শোষনমুক্ত সমানাধিকারের দেশ গড়ার লড়াই আমাদের জারি থাকবে।“ তিনি আরো জানান “আপাতভাবে বিজেপির বাংলার মসনদে বসে পড়ার দুঃস্বপ্ন প্রতিহত হয়েছে। কিন্তু ফ্যাসিস্টরা এরপরেও যথেষ্ট শক্তি নিয়ে একমাত্র বিরোধী দল হিসেবে রাজ্যে উপস্থিত রইল। সংঘ-পরিবারের নেটওয়ার্ক এর পরেও বাংলায় সক্রিয় থাকবে। ফলে কর্পোরেটের মদতপুষ্ট ফ্যাসিস্ত শক্তির বিরুদ্ধে লড়াই শেষ হচ্ছে না। আমরা সে লড়াইয়ে সামনের সারিতে দাঁড়িয়ে লড়াইয়ের অঙ্গীকার করছি।“

অন্য দিকে ‘ফ্যাসিস্ট আরএসএস বিজেপি-র বিরুদ্ধে বাংলা’ নামক মঞ্চ যারা গত কয়েকমাস ধরে রাজ্যের প্রায় সব জেলায় “বিজেপি-কে একটিও ভোট নয়” বা “নো ভোট টু বিজেপি” স্লোগানকে সামনে রেখে প্রচার চালিয়েছিল তারাও শাসক দলের এই হামলার প্রতিবাদ করছে। এক প্রেস বিবৃতিতে তাঁরা জানান , “মঞ্চ গভীর উদ্বেগের সঙ্গে লক্ষ্য করছে, নির্বাচনের ফলাফল প্রকাশের অব্যবহিত পরেই পশ্চিমবাংলার নানা স্থানে হিংসাত্মক ঘটনা ঘটছে। বিধাননগর দত্তাবাদ থেকে, উত্তর ২৪ পরগনার হেমনগর, বোলপুরের বাগদি পাড়া থেকে বিরোধীদের ঘরবাড়ি পুড়িয়ে দেওয়া, মারধোর, হত্যা ইত্যাদি ঘটনার খবর আমাদের কানে এসেছে। এই বিবৃতি লেখার  সময়েও আমরা হাওড়ায়, সোদপুরে, বরানগরে নানা ঘটনার কথা জানতে পারছি। আমাদের অনুরোধ, রাজ্য সরকার অবিলম্বে এগুলো বন্ধ করার জন্য কার্যকর হস্তক্ষেপ করুন। মঞ্চ অবিলম্বে দোষীদের শাস্তির ব্যবস্থা করা, ক্ষতিপূরণ প্রদান করা, ঘরবাড়ি  নতুন করে বানিয়ে দেওয়ার দাবি জানাচ্ছে। পাশাপাশি, রাজনৈতিক বিরোধী কর্মী, সমর্থকদের  উপর সব ধরনের আক্রমণ, মহিলাদের উপর আক্রমণের  ঘটনার নিন্দা করছে ও প্রতিবাদ জানাচ্ছে। মঞ্চ মনে করে, সর্বস্তরে নির্বাচন পরবর্তী শান্তি ফিরিয়ে আনা ও তা বজায় রাখার দায়িত্ব শাসক দলেরই, সেই কাজে তাদের আশু তৎপর হতে হবে।“

Please follow and like us:
error16
fb-share-icon0
Tweet 20
fb-share-icon20
Tagged
No Thoughts on নির্বাচনের ফল ঘোষণার পরেই নানা জায়গায় শাসক দলের হামলার অভিযোগ

Leave A Comment