গৃহপরিচারিকাকে পুলিশি নির্যাতনের প্রতিবাদে ডেপুটেশন

আজকের খবর বিশেষ খবর রাজ্য

Last Updated on 6 months by admin

নিজস্ব প্রতিনিধি, ১৯ মার্চ,২০২১ :

“আইনের চোখে যদি সবাই সমান হয় তাহলে কেন আমাদের, গরীবদের বারবার মিথ্যে অভিযোগে থানায় ডেকে অপমান, মারধর করা হয়? বড়োলোক বাড়ির সাথে তো এমনটা হয় না। তাহলে কি পুলিস শুধু ওদের জন্য?” সিঁথি থানার সামনে পুলিসের চোখে চোখ রেখে প্রশ্নগুলো ছুঁড়ে দিচ্ছিলেন গৃহশ্রমিক মাফুজা খাতুন।

পাঁচ দিন আগে আরেক গৃহশ্রমিক গৌরী মণ্ডলকে এই থানায় ডেকে কদর্য নির্যাতন চালায় সিঁথি থানার পুলিস। তারই প্রতিবাদে গণতান্ত্রিক অধিকার রক্ষা সমিতি ও সংগ্রামী গৃহশ্রমিক ইউনিয়ন (দক্ষিণ বঙ্গ) -র  পক্ষ থেকে যৌথ ভাবে ডেপুটেশন দেওয়া হয় সিঁথি থানায়। সেখানে সমস্ত বক্তা বার্তা দেন  শ্রমজীবী মানুষকে অসম্মানের এই পরম্পরা তাঁরা মেনে নেবেন না।

 

 

গত ১৪ই মার্চ  আনন্দবাজার পত্রিকার ‘কলকাতা’ পাতায় প্রকাশিত একটি খবরেপ্রকাশিত হয় যে গৌরী মন্ডল নামে এক বৃদ্ধা গৃহপরিচারিকা কে সিঁথি থানার পুলিশ চুরির অভিযোগে উঠিয়ে নিয়ে গিয়ে চরম অত্যাচার করেছে, হাত ভেঙ্গে দিয়েছে, জোর করে লঙ্কা খাইয়েছে, যৌনাঙ্গে শুকনো লঙ্কা ঘষে দেওয়ার হুমকি দিয়েছে। গৌরী মন্ডলের বিরুদ্ধে অভিযোগ – তিনি নাকি সিঁথি অঞ্চলে বসবাসকারী সন্দীপ চৌধুরী নামক এক উকিলের বাড়ি থেকে কাজ করার সময় চুরি করেছেন। তাকে শুধু এক দিন নয় দু দিন থানায় জোর করে উঠিয়ে আনা হয়েছে, তার প্রত্যেকটি কাজের বাড়িতে তাকে জোর করে নিয়ে গিয়ে জিজ্ঞাসা করা হয়েছে উনি চোর কিনা! অথচ তার বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ এখনো প্রমাণ হয়নি এবং সন্দেহভাজনের তালিকায় থাকা বাকিদের সাথে এরকম কোন ঘটনা ঘটেনি। যদিও সংবিধানের নিয়ম অনুযায়ী আইনের চোখে সবাই সমান এবং অভিযোগ প্রমাণ হওয়ার আগে পর্যন্ত কোনো ব্যক্তির সাথে এই ধরণের জবরদস্তি করা যায় না।

উক্ত ঘটনা কিন্তু মোটেও নতুন না। এটি বহু দিনকার প্রচলিত ঘটনা। এর আগেও ২০১৯ সালে বেলঘড়িয়া তে একটি চুরির ঘটনায় প্রথম সন্দেহের তীর ওঠে সেই বাড়ির বহুদিনের কর্মী সেখানের গৃহ পরিচারিকার উপর। তাকে বেলঘড়িয়া থানার পুলিশ জোর করে থানায় ধরে নিয়ে গিয়ে ১২ ঘন্টার উপর জিজ্ঞাসাবাদ করে, শেষমেষ অনেক ঝামেলার পর রাত ১০টা নাগাদ ১২০০০টাকার বিনিময়ে ছাড়ে। আনলক পর্বের পরেও বেলঘড়িয়া তে চুরি হতে পারে সেই আশঙ্কায় পুলিশ ভোরবেলা ৪জন গৃহপরিচারিকা কে থানায় উঠিয়ে নিয়ে গিয়ে ভয় দেখায় ভোর বেলা বাসে করে কাজে আসা যাবে না, নইলে তাদের স্থান হবে জেলে। এই ধরণের ঘটনা কিন্তু ঘটতেই থাকে সমানে যা খুবই ছোট্ট ভেবে সবার নজর এড়িয়ে যায়। উচ্চবিত্ত মধ্যবিত্ত নির্বিশেষে যেকোনো চুরির ঘটনায় প্রথম অভিযোগের আঙ্গুল ওঠে এই গরীব অসহায় গৃহপরিচারিকাদের উপর। যেহেতু তারা বাড়ির অন্দরে ঢুকে কাজ করা গরীব মানুষ তাই তারা যেন খুবই সহজলভ্য, যখন খুশি তাদেরকে উঠিয়ে এনে মারধোর করা যায়, কড়কানি দেওয়া যায়, লাই ডিটেক্টর টেস্ট করানো যায়। অথচ দেখা গেছে  ৯০ শতাংশ ক্ষেত্রেই এঁরা নির্দোষ। খবরের কাগজের মধ্যবিত্ত মানসিকতার দরুণ চেশির ভাগ সময় খবর হয় কোন গৃহশ্রমিক  কী চুরি করল, কোন মালিককে খুন করল – কিন্তু সেই একই খবরের কাগজ প্রায়ই স্বচ্ছন্দে এড়িয়ে যায় প্রতিদিন যে কত কত গৃহ পরিচারিকা শারীরিক মানসিক অত্যাচারের শিকার হন, নিয়মিত পুলিশি হেনস্থার শিকার হন।

উল্লেখ করা যেতে পারে সিঁথি থানার বিরুদ্ধে এই অভিযোগ এই প্রথম নয়। এর আগে ছোট ব্যবসায়ী রাজকুমার সাউ, স্নেহময় দে, থানায় তুলে এনে নির্যাতন করা হয়েছিল বলে অভিযোগ।

এই সব কিছুর প্রতিবাদে গতকাল ১৮ই মার্চ সিঁথি থানার সামনে এক জমায়েত ও বিক্ষোভ কর্মসূচির আয়োজন করা হয়েছিল গণতান্ত্রিক অধিকার রক্ষা সমিতি (APDR) নিমতা- বেলঘড়িয়া শাখা ও সংগ্রামী গৃহশ্রমিক ইউনিয়ন (দক্ষিণ বঙ্গ) র পক্ষ থেকে। থানার ইন্সপেক্টর কেও একটি ডেপুটেশন জমা দেওয়া হয়।

দেশ যতই এগিয়ে যাক না কেন- যারা দেশের  মেরুদন্ড তাদের ন্যায় বিচার কিন্তু আজও দুরস্ত। সরকারি আইন নামে হলেও কাজে আজও তাদের সাথে নেই। যে পুলিশের কর্তব্য সবার সাথে থাকা পাশে থাকা তাদেরই আচরণে পাশবিকতা ফুটে ওঠে, শ্রেণী ও অর্থনৈতিক বৈষম্যগত চিন্তা ভাবনা প্রকাশ পায়।

গণতান্ত্রিক অধিকার রক্ষা সমিতি  ও সংগ্রামী গৃহশ্রমিক ইউনিয়ন (দক্ষিণ বঙ্গ) এর পক্ষ থেকে ডেপুটেশনে দাবি জানানো হয় যে,  অবিলম্বে, গৌরী মন্ডলকে নির্যাতনের অভিযোগের তদন্ত হোক, দোষীদের শাস্তি দেওয়া হোক ও নির্যাতিতাকে ক্ষতিপূরণ দেওয়া হোক। এছাড়া দাবি জানানো হয়  মিথ্যা চুরি ও অন্যান্য অভিযোগে গৃহশ্রমিকদের হেনস্থা করার পুলিশি পরম্পরার অবসান  ঘটানো হোক। ডেপুটেশনের পাশাপাশি  সিঁথি থানার সামনে বিক্ষোভ প্রদর্শন, এলাকায় মিছিল করেন সংগঠনগুলির প্রতিনিধিরা।

Please follow and like us:
error16
fb-share-icon0
Tweet 20
fb-share-icon20
Tagged
No Thoughts on গৃহপরিচারিকাকে পুলিশি নির্যাতনের প্রতিবাদে ডেপুটেশন

Leave A Comment