গো হত্যার কারণে ভূমিকম্প – গরুর দুধে সোনা, গো বিজ্ঞান পরীক্ষার সিলেবাস দিল কেন্দ্র

আজকের খবর বিশেষ খবর

Last Updated on 9 months by admin

গরু কল্যাণে প্রতিষ্ঠিত কেন্দ্রীয় সরকারী সংস্থা রাষ্ট্রীয় কামধেনু আয়োগ (আরকেএ) ঘোষণা করেছে যে আগামী ২৫ ফেব্রুয়ারি দেশব্যাপী অনলাইনে ‘গৌ বিজ্ঞান’ (গরু বিজ্ঞান) বিষয়ে পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। পরীক্ষার জন্য কোনও ফি নেওয়া হবে না।

এই ধরণের পরীক্ষার ঘোষণা করেছেন আরকেএ চেয়ারম্যান বল্লভভাই কাঠিরিয়া। তিনি জানিয়েছেন, ‘কমধেনু গৌ বিজ্ঞান প্রচার প্রসার পরীক্ষা’ প্রতি বছর অনুষ্ঠিত হবে।

আরকেএ চেয়ারম্যান একটি সাংবাদিক সম্মেলনে বলেছেন, “আমরা ২৫ শে ফেব্রুয়ারী, ২০২১ থেকে জাতীয় পর্যায়ে ‘কামধেনু গৌ বিজ্ঞান প্রচার প্রসার পরীক্ষা’ শুরু করছি। গরুর প্রতিটি জিনিস বিজ্ঞানের দ্বারা পরিপূর্ণ যা আমাদের গবেষণা করে দেখা দরকার। গরু আমাদের দেশের ৫০ ট্রিলিয়ন অর্থনীতির ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে”। উল্লেখিত পরীক্ষাটি হিন্দি এবং ইংরেজি ছাড়াও ১২ টি আঞ্চলিক ভাষায় অনুষ্ঠিত হবে।

মৎস্য, পশুপালন ও প্রানীসম্পদ মন্ত্রণালয়ের একটি বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, আরকেএর অধীনে এই পরীক্ষাটি চারটি স্তরে (অষ্টম শ্রেনীর মধ্যে প্রাথমিক স্তর, নবম শ্রেণি থেকে দ্বাদশ শ্রেণি পর্যন্ত মধ্যম স্তর, কলেজ স্তর হবে দ্বাদশ শ্রেনীর পর এবং চতুর্থ বিভাগটি সাধারণ মানুষের জন্য) থাকবে। মন্ত্রক জানিয়েছে যে পরীক্ষার জন্য কোনও ফি নেওয়া হবে না।

আয়োগের ওয়েবসাইটেই দেওয়া হয়েছে সিলেবাস। সিলেবাসে গো হত্যা করলে ভূমিকম্প ও গরুর দুধে সোনা পাওয়ার মতো তথ্য রয়েছে। পরীক্ষা হবে এক ঘণ্টার। এই পরীক্ষায় সফলদের জন্য বিশেষ পুরস্কারের ব্যবস্থাও থাকছে।

সিলেবাসে বলা হয়েছে, “১৯৮৪ সালে ভোপালে গ্যাস দুর্ঘটনার কারণে ২০,০০০ এরও বেশি লোক মারা গিয়েছিল। গোবর লেপা দেওয়ালের বাড়িতে যারা বাস করতেন তাঁদের কোনও ক্ষতি হয়নি”। সিলেবাস অনুসারে, “দেশীয় গরুগুলি নোংরা জায়গা চিনতে পারে। তাদের স্বাস্থ্য ভালো ও তারা চালাক, আর জার্সি গরু অলস এবং বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত ……  তারা (জার্সি গরু) পর্যাপ্ত স্বাস্থ্যকর না হওয়ায় সংক্রমণ ছড়ায়।” সিলেবাসে এটাও বলা হয়েছে যে যখনই কোনও অচেনা ব্যক্তি দেশি গরুর কাছে আসে, ‘তিনি’ (গরুটি) দাঁড়িয়ে  সেই ব্যক্তিকে সম্মান জানাবে। বিদেশী বা জার্সি গরু কোনও সম্মান প্রদর্শন করে না। সিলেবাসের পাশাপাশি গরু সম্পর্কিত অন্যান্য সাহিত্য ও রেফারেন্স বইও জাতীয় পরীক্ষার জন্য পরীক্ষার্থীদের সহায়তা করবে বলে বলা হয়েছে।

পরীক্ষার বিষয়ে রাষ্ট্রীয় কামধেনু আয়োগের এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, “কেন্দ্রীয় শিক্ষামন্ত্রী, রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী, রাজ্য শিক্ষামন্ত্রী, সকল রাজ্যের গৌ পরিষেবা সভাপতি, সকল রাজ্যের জেলা শিক্ষা অফিসার, সমস্ত কলেজ – বিদ্যালয়ের অধ্যক্ষ ও অন্যান্য অফিসাররা এই বিশাল পরীক্ষা ব্যবস্থার সাথে যুক্ত থাকবেন।”

‘কামধেনু গৌ বিজ্ঞান প্রচার প্রসার পরীক্ষা’কে সরকারি টাকার অপব্যয় বলে চিহ্নিত করেছেন অনেকে। রাজাবাজার সায়েন্স কলেজের ছাত্র সৌভিক বলেছেন, “ সরকারি টাকা এই অপবিজ্ঞানে অপচয় করার অধিকার কেন্দ্র সরকারের নেই। গবেষণার গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলিতে সরকার টাকা দিচ্ছে না আর বিজ্ঞানের নামে কুসংস্কার ছড়াতে টাকার অভাব নেই সরকারের!”

কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের পদার্থ বিদ্যার এক অধ্যাপক এই পরীক্ষা ও সিলেবাসের কথা শুনে প্রথমে হাসাহাসি করলেও পরে তিনি বললেন, “এরা বিজ্ঞান চর্চা করতে চায় না। কেন্দ্রের এই সরকার মানুষের মগজে কুসংস্কারকে পুরে দিতে চায়। এভাবে চললে এরা সভ্যতাকে একদম অন্ধকার কুপে নিমজ্জিত করবে। এই প্রয়াসকে ধিক্কার জানাই”।

Please follow and like us:
error16
fb-share-icon0
Tweet 20
fb-share-icon20
No Thoughts on গো হত্যার কারণে ভূমিকম্প – গরুর দুধে সোনা, গো বিজ্ঞান পরীক্ষার সিলেবাস দিল কেন্দ্র

Leave A Comment