বাঁকুড়ার সোনামুখীর কৃষকরা ধর্নায় : দাবি – নয়া কৃষি আইন বাতিল করতে হবে

কৃষক আন্দোলন

Last Updated on 9 months by admin

1 January, 2021(9.10PM)

নিজস্ব সংবাদদাতা, বাঁকুড়া: নয়া কৃষি আইন বাতিলের দাবীতে সারা দেশ জুড়ে কৃষকরা যখন আন্দোলিত – দিল্লির রাস্তা যখন প্রায় কৃষকদের শান্তিপূর্ণ অবস্থান আন্দোলনে জমজমাট; তখন বহু মানুষের প্রশ্ন ছিল যে কোথায় বাংলার কৃষকরা।  নয়া কৃষি আইন বাতিলের দাবিতে – সারা দেশের কৃষক আন্দোলনকে সমর্থন জানিয়ে বাঁকুড়ার সোনামুখীর প্রত্যন্ত গ্রামের চাষিরাও আজ আন্দোলনে সামিল হয়েছেন। আজ ১৯দিন ধরে ধর্না অবস্থান চালিয়ে যাচ্ছেন পাঁচাল গ্রামের চাষীরা। কোনরকম রাজনৈতিক দলের ব্যানার ছাড়া সাধারণ কৃষকরাই এক হয়ে আন্দোলনে নেমেছেন। এই ধর্না অবস্থানকে সমর্থন জানিয়েছেন ওখানকার বিজ্ঞানী, গবেষক, নাট্যকর্মী, ডাক্তার সহ বিভিন্ন পেশার সাথে যুক্ত মানুষজন। তাঁরা এসে ধর্নায় যোগ দিচ্ছেন। এমনকি শহরাঞ্চল থেকে বিভিন্ন ক্ষেত্রের মানুষ ও সমাজকর্মীরা পাঁচালের এই ধর্না মঞ্চে আসছেন। কৃষি আইন বাতিলের পক্ষে বক্তব্য রাখছেন, গান করছেন, নাটক করছেন। পশ্চিমবঙ্গের প্রত্যন্ত গ্রামের কৃষকরাও যে কৃষি আইনের বিরুদ্ধে গর্জে উঠেছেন পাঁচালের এই ধর্না অবস্থান স্পষ্ট করে দিয়েছে।

আন্দোলনকারীদের পক্ষে পাঁচালের বাসিন্দা ভৈরব সাইনি তাঁর বক্তব্যে বলেন, “কেন্দ্রীয় সরকার কৃষক বিরোধী আইন সংসদে পাশ করিয়েছে। এতে প্রান্তিক ও ক্ষুদ্র চাষি সহ সমস্ত চাষিদের সর্বনাশ হবে। আমাদের রাজ্যে ছোট চাষির সংখ্যা বেশি। সবচেয়ে বেশি বিপদে পড়ব আমরাই। দিল্লিতে কৃষক সাথীরা আন্দোলন করছেন। কিন্তু, আমাদের মতো দরিদ্র চাষিদের কৃষিকাজ ছেড়ে দিল্লি যাওয়া সম্ভব নয়। তাই আমরা নিজেদের গ্রামে ধর্না কর্মসূচি নিয়েছি। এই কৃষি আইন শুধু আমাদের মতো চাষীদের ক্ষতি করবে না সমাজের সব রকম খেটে খাওয়া মানুষের ক্ষতি করবে। তাই সবারই এই আইনের বিরুদ্ধে রাস্তায় নামা দরকার। সমাজের বিভিন্ন পেশার মানুষ আমাদের ডাকে সাড়া দিয়েছেন। তাঁরাও কৃষি আইনের ক্ষতির দিকগুলি আমাদের সামনে তুলে ধরছেন।“

ধর্না মঞ্চের অবস্থানে থাকা বিমল বাউরি, হরেকৃষ্ণ, গৌতম বাউরি ও শুভাশিস মন্ডলরা  জানালেন যে তাঁরা সবাই কৃষক এমনটা নয়। তাঁরা কেউ কৃষক, কেউ বা নির্মাণ শ্রমিক বা অন্য কোনো পেশার মানুষ। তাঁরা এই কৃষি আইনের বিরুদ্ধে তাঁদের প্রতিবাদ জানাতে ধর্না মঞ্চে এসেছেন। তাঁদের বক্তব্য, “এই নতুন আইনে অত্যাবশকীয় পণ্যের ক্ষেত্রে সংশোধন আনার ফলে কালোবাজারি, মজুতদারি বাড়বে। জিনিসপত্রের দাম আকাশ ছোঁয়া হবে। একদিকে যেমন চাষিরা ফসলের ন্যায্য দাম পাবে না তেমনই সাধারণ মানুষও চড়া দামে নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিস কিনতে বাধ্য হবে। তাই সবারই এই জনবিরোধী কৃষি আইনের বিরোধীতা করা উচিৎ।“

ধর্না মঞ্চে আসা কলকাতার ইন্ডিয়ান স্ট্যাটিস্টিক্যাল ইন্সটিটিউটের এক গবেষক বলেন, “কৃষি আইনের প্রতিবাদে সারা দেশে আন্দোলন চলছে। আমরা যে যাই করি না কেন দেশের চাষিদের স্বার্থে তাঁদের পাশে দাঁড়াতে বাধা নেই। তাই যখন শুনলাম, বাঁকুড়ার প্রত্যন্ত গ্রামে কৃষকরা আন্দোলনে নেমেছেন, তখন ছুটে এসেছি।“

কৃষক অবস্থানকে সমর্থন করে একজন ডাক্তার বলেন, “কৃষকরা আমাদের অন্নদাতা। তাই অন্য পেশার মানুষ হয়েও  কৃষকদের পাশে দাঁড়ানো নৈতিক দায়িত্ব বলে মনে করেছি। এই ঠান্ডায় দিল্লিতে লক্ষ লক্ষ কৃষক আন্দোলন করছেন। সেখানে যাওয়া সম্ভব হয়নি। বাঁকুড়ার পাঁচালে একই ইস্যুতে আন্দোলন হচ্ছে শুনে আর থাকতে পারিনি।“

পাঁচালের হাইস্কুলের পাশে রাস্তার ধারে প্যান্ডেল খাটিয়ে মঞ্চ করা হয়েছে। চট ও শতরঞ্চি পাতা। স্থানীয় কৃষকরা ছাড়াও সমাজের বিভিন্ন স্তরের মানুষ কৃষি আইনের ক্ষতিকারক দিক নিয়ে বক্তব্য রাখছেন। কনকনে এই শীতেও অনেকরাত পর্যন্ত অবস্থান চলছে। স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, গত ১৯ দিন ধরে এভাবেই ধর্না অবস্থান চলছে।

 

Please follow and like us:
error16
fb-share-icon0
Tweet 20
fb-share-icon20
Tagged
One Thought on বাঁকুড়ার সোনামুখীর কৃষকরা ধর্নায় : দাবি – নয়া কৃষি আইন বাতিল করতে হবে
    কৌশিক
    3 Jan 2021
    6:32pm

    খুবই ভালো উদ্যোগ নিয়েছেন বাংলার কৃষকেরা। এই তিনটি আইন শুধুমাত্র কৃষক বিরোধী নয়, সমস্ত জনগণের বিরুদ্ধে। একমাত্র দেশী বিদেশী কর্পোরেট ব্যবসায়ী, যারা মানুষের খিদেকে ব্ল্যাকমেল করে মুনাফার পাহাড় বানায়, তাদের অনৈতিক কাজকে আইনী সুবিধা দিতে এইসব আইন তৈরী হয়েছে।

    কৃষকদের আন্দোলন জয়যুক্ত হবেই।

    0
    0

Leave A Comment