সরকারের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করে কৃষকরা জানিয়ে দিলেন – কৃষিবিল সম্পূর্ণ প্রত্যাহারের দাবীতে আন্দোলন চলবে!

আজকের খবর কৃষক আন্দোলন বিশেষ খবর

Last Updated on 8 months by admin

বিশেষ সংবাদদাতা, ২১.০১.২০২১

আজ সংযুক্ত কিষাণ মোর্চার পূর্ণাঙ্গ সাধারণ সভায় সরকারের দেওয়া প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করা হয়। কেন্দ্রীয় সরকারকে তিনটি কৃষি আইন সম্পূর্ণ বাতিল করতে হবে এবং সমস্ত কৃষকদের জন্য ন্যুনতম সহায়ক মূল্য আইন কার্যকর করার দাবি থেকে কৃষকরা সরছেন না বলে স্পষ্টভাবে জানিয়ে দেয় সংযুক্ত কিষাণ মোর্চা।

 

উল্লেখ করা যায় যে কেন্দ্র জানায় তারা আগামী দেড় বছর তিনটি কৃষি আইন স্থগিত রাখবে যদি কৃষক সংগঠঙ্গুলো আন্দোলন প্রত্যাহার করে নেয়। কৃষকরা কেন্দ্রের দেওয়া এই প্রস্তাব সম্মিলিত ভাবে প্রত্যাখ্যান করেন। তাঁদের বক্তব্য ‘স্থগিত নয় – সম্পূর্ণ প্রত্যাহার’ করতে হবে।

 

প্রায় পাঁচ গন্টা ধরে চলা সভার শুরুতেই  এই আন্দোলনে এখনও অবধি শহীদ হওয়া ১৪৩ জন কৃষককে সংযুক্ত কিষাণ মোর্চার তরফ থেকে শ্রদ্ধা জানানো হয়। সংযুক্ত কিষাণ মোর্চার তরফ থেকে জানানো হয়, “এই কৃষক আন্দোলন চলাকালীন সময়ে আমাদের এই সব সাথীদের আমরা হারিয়েছি। তাঁরা শহীদ হয়েছেন। তাদের আত্মত্যাগ বৃথা যাবে না এবং আমরা এই কৃষি আইন বাতিল না করে ফিরে যাব না।“

 

পুলিশ কর্মকর্তাদের সাথে অনুষ্ঠিত বৈঠকে, পুলিশ দিল্লিতে ২৬ জানুয়ারি দিল্লীতে কৃষকদের ট্রাক্টর মিছিল না চালানোর অনুরোধ করেছিল এবং কৃষকরা দিল্লির বাইরের রিং রোডে কুচকাওয়াজ করার বিষয়ে তাদের পরিকল্পনাটি  যেন পুনরায় বিবেচনা করে। আজকে কিষাণ মোর্চার সভা তাদের মিছিল করার ব্যাপারে অনড় থাকে।

 

একটি সূত্র থেকে জানা যায়, পুলিশ আধিকারিকরা আউটার রিং রোডের পরিবর্তে কুন্ডলি-মনেসর-পালওয়াল এক্সপ্রেসওয়েতে তাদের ট্র্যাক্টর সমাবেশ করার জন্য বিক্ষোভরত কৃষক সংগঠনগুলিকে বোঝানোর চেষ্টা করেছিলেন, কৃষকরা তা প্রত্যাখ্যান করেন। তাঁরা জানিয়ে দেন, সারা দেশের কৃষক এই শান্তিপূর্ণ মিছিলে অংশ নেবেন।

 

সংযুক্ত কিষান মোর্চা এক প্রস বিবৃতিতে জানায়, “এই শান্তিপূর্ণ কৃষক আন্দোলনটি জনগণের আন্দোলনে পরিণত হয়েছে এবং দেশব্যাপী তার প্রসার ঘটছে। কর্ণাটকের অনেক জায়গায় যানবাহন সমাবেশের মাধ্যমে কৃষকরা প্রজাতন্ত্র দিবসের জন্য ঐক্যবদ্ধ হচ্ছে। কেরালায় অনেক জায়গায় কৃষকের ট্রাক্টর মিছিল চলছে।“

 

“আমরা দিল্লির অভ্যন্তরে শান্তিপূর্ণভাবে আমাদের কুচকাওয়াজ করব। তারা চেয়েছিল যে আমরা দিল্লির বাইরে ট্র্যাক্টর সমাবেশ করবো, যা সম্ভব নয়,” আন্দোলনকারী কৃষকদের তরফ থেকে বলা হয়।

 

পুলিশের সাথে বৈঠকে অংশ নেওয়া একজন কৃষক নেতা বলেন, “সরকার চায় আমরা আমাদের সমাবেশ দিল্লির বাইরে নিয়ে যাই, তবে আমরা এটি দিল্লির অভ্যন্তরে রাখতে চাই। আজকের সভায় কোনও সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি।” সিংঘু সীমান্তের কাছে মন্ত্ররাম রিসর্টে পুলিশ আধিকারিকদের সাথে কৃষক প্রতিনিধিদের বৈথক হয়। অনুষ্ঠিত বৈঠকে সমন্বয় করেন যুগ্ম পুলিশ কমিশনার (উত্তর রেঞ্জ) এসএস যাদব। এই বৈঠকে বিশেষ কমিশনার (আইনশৃঙ্খলা-পশ্চিম অঞ্চল) সঞ্জয় সিং, বিশেষ পুলিশ কমিশনার (গোয়েন্দা) দেপেন্দ্র পাঠক এবং দিল্লি, হরিয়ানা এবং উত্তরপ্রদেশের পুলিশ প্রবীণ আধিকারিকরা উপস্থিত ছিলেন।

 

তবে কৃষক ইউনিয়নগুলি পুলিশ অফিসারদের দিল্লির ব্যস্ত আউটার রিং রোডের পরিবর্তে কুণ্ডলি-মাননেসর-পালওয়াল এক্সপ্রেসওয়েতে সমাবেশ করার পরামর্শকে আগেই প্রত্যাখ্যান করেছিল বলে সূত্র জানিয়েছে।

 

গত বছরের (২০২০) সেপ্টেম্বরে প্রণীত এই তিনটি কৃষি আইনকে কৃষিক্ষেত্রে বড় ধরনের সংস্কার হিসাবে কেন্দ্র তরফ থেকে চিহ্নিত করা হয়েছে। যেখানে বলা হয়েছে যে এই আইন মধ্যস্বত্বভোগীদের সরিয়ে দেবে এবং কৃষকদের দেশের যে কোনও জায়গায় তাদের পণ্য বিক্রি করতে দেবে।

 

তবে, বিক্ষোভকারী কৃষকরা তাদের আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন যে নতুন আইন কৃষকদের ন্যূনতম সহায়তার মূল্যের সুরক্ষা নির্মূল করে দেনে এবং “ম্যান্ডি” (পাইকারি বাজার) ব্যবস্থাটি বন্ধ করে  কৃষকদের ফেলে দেওয়া হবে কর্পোরেট হাঙরদের মুখে।

 

সারা ভারত কিষাণ সংঘর্ষ সমন্বয় কমিটির (এআইকেএসসিসি) এক সদস্য বলেছেন যে কৃষক ইউনিয়ন কেন এই প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করেছে সে সম্পর্কে একটি সাংবাদিক সম্মেলন ২২ জানুয়ারী শুক্রবার অনুষ্ঠিত হবে।

 

সংযুক্ত কিষাণ মোর্চা জানায় যে প্রজাতন্ত্র দিবসে দেশের হৃদয় জয় করতে দিল্লিতে কৃষকদের কুচকাওয়াজে  অংশ নেবে ১০ লক্ষেরও বেশি কৃষক – ট্রাক্টর নিয়ে বা অন্য যানবাহন নিয়ে।

 

Please follow and like us:
error16
fb-share-icon0
Tweet 20
fb-share-icon20
One Thought on সরকারের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করে কৃষকরা জানিয়ে দিলেন – কৃষিবিল সম্পূর্ণ প্রত্যাহারের দাবীতে আন্দোলন চলবে!
    গৌরব সাপুই
    23 Jan 2021
    12:41am

    এই লড়াই দেশে নতুন আশার সঞ্চার করেছে l

    0
    0

Leave A Comment