Home>কৃষক আন্দোলন>সিঙ্ঘু সীমান্তে আন্দোলনরত কৃষকদের জন্য নতুন বছরের কোনো উৎসব নেই

Last Updated on 9 months by admin

বিশেষ সংবাদদাতা: যে হাজার হাজার কৃষক নিজেদের ঘর ও পরিবার থেকে দূরে সিঙ্ঘু সীমান্তে কেন্দ্রের সাম্প্রতিক তিনটি কৃষি আইনের প্রতিবাদে রাত কাটাচ্ছেন, নতুন বছরে তাঁদের কোনো উৎসব নেই। আজ কৃষকদের একটি দল রাজস্থান আর হরিয়ানার সীমানা শাহজাহানপুরের ব্যারিকেড ভেঙ্গে হরিয়ানায় ঢোকার চেষ্টা করলে হরিয়ানা পুলিশ তাঁদের ওপর জলকামান ও টিয়ার গ্যাস প্রয়োগ করে। তাতে কিছু কৃষক আটকে গেলেও বাকিরা ব্যারিকেড ভেঙ্গে হরিয়ানায় ঢুকতে সমর্থ হন। যাঁরা এইভাবে আটকে পড়েন, তাঁরা রাজস্থান-হরিয়ানা সীমান্তে প্রতিবাদ অবস্থানে বসেছেন। আন্দোলনের নেতৃত্ব জানিয়েছেন, যাঁরা ব্যারিকেড ভেঙ্গে ঢুকেছেন, তাঁরা আন্দোলনের সামগ্রিক বোঝাপড়ার বাইরে গিয়েই তা করেছেন।

কেন্দ্রীয় কৃষিমন্ত্রী নরেন্দ্র সিং তোমর একাধিকবার কৃষক আন্দোলনের নেতাদের অনুরোধ জানিয়েছেন যাতে মহিলা ও শিশুদের তাঁদের বাড়িতে পাঠিয়ে দেওয়া যায়, কিন্তু তাঁরা এ ব্যাপারে অনড়। কিষাণ একতা মোর্চা-র টুইটার হ্যান্ডল থেকে জানা যাচ্ছে যে হুইলচেয়ারে বসা ৭৪-বছর বয়সী জল কৌর সম্প্রতি সিঙ্ঘু সীমান্তের প্রতিবাদে যোগদান করেছেন।

সিঙ্ঘু সীমান্তে আন্দোলনকারীরা নিজস্ব উপায়ে নতুন বছর কাটানোর পরিকল্পনা করেছেন। কেউ কেউ ঠিক করেছেন তাঁরা আগের মতোই “সেবা” দেবেন। এছাড়া ঠিক হয়েছে, সব আন্দোলনকারী কৃষকদের জন্য একটি “পাগড়ি লঙ্গর” তৈরি করা হবে। অনেক আন্দোলনকারীর নতুন পাগড়ি নেই। এই লঙ্গর থেকে তাঁদের জন্য নতুন বছরে নতুন পাগড়ি বিতরণ করা হবে।

আজও হরিয়ানার মুখ্যমন্ত্রী মনোহরলাল খাট্টার বলেছেন, তিনি যদি কৃষকদের জন্য ন্যূনতম সহায়ক মূল্যের ব্যবস্থা করতে না পারেন, তাহলে তিনি রাজনীতি ছেড়ে দেবেন। সহকারী মুখ্যমন্ত্রী দুশ্যন্ত চৌতালাও বলেছেন, তিনিও চেষ্টা করবেন যাতে কৃষকরা ন্যূনতম সহায়ক মূল্য পান।

[ভিডিও দেখুন:  দিল্লীর দরজায় দাঁড়িয়ে কৃষকরা !]

ওদিকে রাজস্থান সরকার এক সপ্তাহ জুড়ে “কিষাণ বাঁচাও-দেশ বাঁচাও” বলে একটি প্রচারাভিযান শুরু করতে চলেছে। আম আদমি পার্টি গতকাল সিঙ্ঘু সীমান্তে ইন্টারনেট এর জন্য ৫ টি হটস্পট যন্ত্র বসিয়েছে।

অন্যদিকে পঞ্জাবে ১৬০০ মোবাইল টাওয়ার নষ্ট করার ফলে রাজ্যপাল মুখ্যসচিব ও ডিজিপি-কে তলব করায় সেখানকার কৃষক আন্দোলন এক অন্য মাত্রা পেয়েছে। রিলায়েন্স জিও-র তরফ থেকে পঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী অমরিন্দর সিং কে চিঠি লেখা হয়েছে এ বিষয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে।

আগামী ৪ ঠা জানুয়ারি কেন্দ্রের সাথে কৃষকদের বৈঠকের সপ্তম রাউন্ড। সরকার সেই বৈঠকের বিষয়ে আশাবাদী হলেও কৃষকরা সাফ জানিয়ে দিয়েছেন ওই তিন আইন প্রত্যাহৃত না হলে তাঁরা কোনোভাবেই আন্দোলন থেকে সরবেন না।

[সাথের ছবি প্রতীকী, আল জাজিরা থেকে প্রাপ্ত]

Please follow and like us:
error16
fb-share-icon0
Tweet 20
fb-share-icon20
Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com
error

Enjoy this website? Please spread the word :)