নয়া কৃষি আইন বাতিলের দাবীতে কলকাতার কৃষকদের ধর্ণা স্থলে হলো নারী কৃষক-মজুর সভা

আজকের খবর কৃষক আন্দোলন বিশেষ খবর

Last Updated on 8 months by admin

নিজস্ব প্রতিবেদন, কলকাতা, ১৮ই জানুয়ারি :

তিনটি কৃষি আইন বাতিল এবং নারী কৃষিজীবীদের জমি,খাদ্য এবং মজুরির অধিকারকে সুনিশ্চিত করার দাবিতে আজ কলকাতায় ধর্মতলার ওআই চ্যানেলে “অন্নদাতাদের সঙ্গে বাংলা” লাগাতার ধর্না মঞ্চে অনুষ্ঠিত হল মহিলা কৃষক-মজুর বিধানসভা। মহিলা কিষাণ দিবস উপলক্ষ্যে, অখিল ভারতীয় কিষাণ সংঘর্ষ সমন্বয় সমিতি ও রাজ্যের বিভিন্ন নারী সংগঠনের যৌথ উদ্যোগে নারী কৃষিজীবীদের এই জমায়েত হয়। উপস্তিত ছিলেন প্রায় ৪০টি কৃষক, মজুর ও নারী সংগঠনের নেতৃত্ব ও সদস্য সমর্থকরা।

নারী সংগঠনের বক্তারা বলেন –  সমাজ বিকাশের আদি যুগে নারীরাই প্রথম কৃষিকাজ শুরু করেছিলেন। নারীর হাতে বোনা বীজ দিয়েই প্রথম চাষাবাদের প্রচলন হয়েছে। এবং বর্তমানেও কৃষিক্ষেত্রে  জমিতে ফসল উৎপাদনের ক্ষেত্রে বীজ রোপন, ফসল ফলানো থেকে শুরু করে ফসল কাটার পরে সেটিকে প্রক্রিয়াজাত করে ঘরে তোলার ক্ষেত্রে নারীরাই প্রধান ভুমিকায় থাকে।

সংগঠনগুলির বক্তব্য – জীবন জীবিকা এবং জমির  জন্য সব লড়াইয়ে সর্বদা মেয়েরা সামনের সারিতে থেকেছে। লড়াইয়ের ময়দানে তাদের বিশাল অবদান আছে। তা  সত্ত্বেও সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতি দিল্লির কৃষক আন্দোলনে মহিলাদের অংশগ্রহনকে অপমান করেছেন বলে মনে করেন এই সংগঠঙ্গুলির নেত্রীবৃন্দ। উল্লেখ্য যে সুপ্রীম কোর্টের প্রধান বিচারপতি প্রশ্ন তুলেছেন যে  “কেন নারী এবং প্রবীণদের এই প্রতিবাদে রাখা হচ্ছে?”  বয়স্ক ও নারীদের ‘ঘরে ফেরত পাঠানোর’ কথা উল্লেখ করে তিনি বলেছিলেন  ভবিষ্যতে এই ব্যাপারে অর্ডার পাশ করতে পারেন। এই ঘোষণা মহিলাদের সাংবিধানিক অধিকারের উপর আক্রমণ বলে অনেকে মনে করছেন। তাদের স্পষ্ট বক্তব্য – “নারীরা স্বতস্ফুর্ত ভাবেই এই আন্দোলন গড়ে তুলেছেন, নতুন কৃষি আইনগুলি যে নারী কৃষকদের অধিকার ও অস্তিত্বকে আরও বহুগুণ বিপন্ন করে তুলবে, তা বুঝেই তাঁরা আন্দোলনে আছেন। প্রধান বিচারপতির এই কথা নারীদের প্রান্তিক এবং অদৃশ্য করে রাখার এক সচেতন প্রয়াস”।

 

মহিলা কৃষক-মজুর বিধানসভা নয়া কৃষি আইন বাতিল সহ নয়টি রেজোলিউশন সর্বসম্মতিতে পাস করেন। রেজোলিউশনে  প্রধান বিচারপতির  নারীদের আন্দোলনে অংশগ্রহণের বিষয়ে ঘোষনাকে ধিক্কার জানানো হয়।

রেজোলিউশনে আরও বলা হয় যে  সমস্ত  ফসলের জন্য উৎপাদন খরচের অন্তত ১.৫ গুণ এম এস পি ঘোষণা করতে হবে।সমস্ত গ্রাম পঞ্চায়েত গুলিতে বিক্রয় কেন্দ্রের মাধ্যমে  ফসলের বিকেন্দ্রীভূত বিক্রয়ের নিশ্চয়তা থাকতে হবে।

সভা শেষে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের পর ধর্মতলা থেকে শিয়ালদহ মশাল মিছিল করেন কৃষক, মজুর ও নারী সংগঠনের নেতৃত্ব ও সদস্য সমর্থকরা।

Please follow and like us:
error16
fb-share-icon0
Tweet 20
fb-share-icon20
No Thoughts on নয়া কৃষি আইন বাতিলের দাবীতে কলকাতার কৃষকদের ধর্ণা স্থলে হলো নারী কৃষক-মজুর সভা

Leave A Comment