দাশনগরের বালিগোলা বস্তিতে হামলা রেলপুলিশের – অভিযোগ ঘুষ চাওয়ার

আজকের খবর

নিজস্ব সংবাদদাতা, হাওড়া: দাশনগর স্টেশন সংলগ্ন বালিগোলা বস্তি কলোনিতে হামলা চালায় আর পি এফ। এক সপ্তাহ আগে হঠাত করে বাহিনী নিয়ে এসে বেশ কিছু ঘর ভেঙে দেয় পুলিশ। তারপর সপ্তাহ জুড়ে মাঝেমধ্যেই চলে এই হানাদারি। ইলেকট্রিসিটি বিলসহ বাকি সব প্রামাণ্য নথি থাকা সত্ত্বেও বস্তিবাসীদের উপর হেনস্থা করা হয়। মহিলারা রুখে দাঁড়ালে মহিলা পুলিশ ছাড়াই তাদেরকে সামনে থেকে সরিয়ে পুলিশ ঘর ভাঙে – এই অভিযোগ জানান বস্তিবাসীরা ।

 

বালিগোলার বাসিন্দাদের থেকে জানা গেল ইঁটের গাঁথনি থাকায় অজুহাত দেখিয়ে আর পি এফ এর বাহিনী এসে এক সপ্তাহ আগে এসে গাঁইতি চালিয়ে ঘর ভাঙে। তারপর বাসিন্দারা কথা বলতে গেল রেল পুলিশ ঘর পিছু ৫০০০ টাকা ঘুষ দাবি করে দরমা বেঁধে থাকতে বলে যায়। RPF এর দাবি করা নগদ টাকা ঘুষ দিতে না পারায় দরমা দিয়ে ঘর বাঁধার পরও পুনরায় দু’বার ঐ ঘর ভেঙে দেওয়া হয় । বর্তমানে এইরকম অস্থায়ী একটি ঘরের গৃহকর্ত্রী সুস্মিতা বিশ্বাস জানান ,”তিনপুরুষ ধরে আমরা এই ঘরেই আছি । বস্তির সব মেয়েরাই পরিচারিকার কাজ করে । করোনার জন্য অনেককেই কাজ থেকে ছাঁটাই করেছে । এখন আবার উচ্ছেদ হলে যাবো কোথায় আমরা ?” কলোনির অন্য এক বাসিন্দা রামপ্রসাদ সিং বলেন ,”ঘর বানানোর জন্যে রাখা সিমেন্টের বস্তাগুলো জলে ফেলে রেল পুলিশ নষ্ট করে দিয়ে গেছে । দরমার ঘর ভেঙে বলে গেছে প্লাস্টিক দিয়ে ঘিরে থাকতে । ওরা বৌ বাচ্চা নিয়ে বহুতলে থাকবে আর আমাদের এই ঠান্ডায় প্লাস্টিক ঘিরে থাকতে হবে ?”

 

হাওড়া খড়্গপুর লাইনের দাশনগর স্টেশনের পাশে বালিগোলার এই কলোনি একশ বছর পুরনো। বহু প্রজন্মের বাসভূমি রয়েছে এই কলোনিতে । আজ হঠাৎ করেই শুরু হয়েছে উচ্ছেদ। এই উচ্ছেদ আটকাতে স্থানীয় কাউন্সিলার ও শাসকদল বর্তমানে বালিগোলার বাসিন্দাদের পাশে এসে দাড়িয়েছেন। ভোটের আগে শাসক দলের থেকে সাহায্য পাওয়া গেলেও এই সমস্যার স্থায়ী সমাধান নিয়ে বাসিন্দারা সন্দিহান। দঃপূর্ব রেলের আধিকারিক দের সাথে যোগাযোগ করা হলে তারা বিষয়টি নিয়ে মন্তব্য করতে চাননি। এ রাজ্যে বিভিন্ন জায়গাতেই রেললাইনের এর দুপাশে শ্রমজীবী মানুষেরা বসতি স্থাপন করেছেন। বহুক্ষেত্রেই এরা স্থানীয় ভাবে ভোটার কার্ড পেয়েছেন। জল, বিদ্যুৎ, গ্যাস এর বৈধ সংযোগ পেয়েছেন। রেললাইনের ধারে বসবাসকারী এই শ্রমজীবী মানুষেরা মানুষেরা গৃহশ্রমিক, হকার, সাফাই কর্মচারী, রিক্সা অটো টোটোচালক প্রভৃতি অসংগঠিত শ্রম ক্ষেত্রের পেশার সাথে যুক্ত। আমাদের শহরের জনজীবন বহুলাংশেই এই সমস্ত মানুষদের শ্রমের উপর নির্ভরশীল। তা সত্ত্বেও এই মানুষরা বৈধ বাসস্থানের অধিকার থেকে বঞ্চিত। বহুদিন ধরে বসবাস করলেও অধিকাংশ সময়েই এই সমস্ত জমির পাট্টা বা জমির উপর অন্য কোনো বৈধ অধিকার বাসিন্দাদের নেই। এই বছরের শুরুর দিকে রাজ্য সরকারের তরফে কিছু অঞ্চলে পাট্টা দেওয়া হয়েছে। কিন্তু এই রাজ্যে বস্তিবাসী বা ঝুপড়ি বাসী মানুষের নির্দিষ্ট আইনি অধিকার নেই। সম্প্রতি মুখ্যমন্ত্রী ঘোষণা করেছেন রেললাইনের ধারে বসবাসকারী কোনো মানুষকে রাজ্যসরকার উচ্ছেদ করবে না। কিন্তু সেই ঘোষণার কয়েকদিনের মধ্যেই দাশনগরের এই উচ্ছেদের ঘটনা এ রাজ্যের বস্তিবাসী মানুষদের বাসস্থানের অনিশ্চয়তার দিকটিকে আবারো সবার সামনে নিয়ে এসেছে।

Please follow and like us:
error16
fb-share-icon0
Tweet 20
fb-share-icon20
No Thoughts on দাশনগরের বালিগোলা বস্তিতে হামলা রেলপুলিশের – অভিযোগ ঘুষ চাওয়ার

Leave A Comment