চলচ্চিত্র নির্মাতা আয়েশা সুলতানার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহের অভিযোগে এফআইআর -এর বিরুদ্ধে লাক্ষাদ্বীপে প্রতিবাদ তীব্রতর হচ্ছে : লাক্ষ্মাদ্বীপের বিজেপি নেতারাও প্রতিবাদে পদত্যাগ করলেন

বিশেষ সংবাদদাতা, ১৩ জুন,২০২১ : চলচ্চিত্র পরিচালক আয়েশা সুলতানার বিরুদ্ধে প্রশাসক প্রফুল খোদা প্যাটেলকে ‘বায়ো-উইপন’ বলার অভিযোগে রাষ্ট্রদ্রোহ মামলায় এফআইআর হওয়ায় লাক্ষাদ্বীপে প্রতিবাদী মানুষের আন্দোলন তীব্রতর হচ্ছে। সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রতিবাদের ঝড় উঠেছে। লাক্ষাদ্বীপের প্রশাসক প্রফুল খোদা প্যাটেলকে কোভিড -১৯ মোকাবিলায় ব্যর্থতার সমালোচনা করেন লাক্ষাদ্বীপের চলচ্চিত্র নির্মাতা আয়েশা সুলতানা। স্থানীয় একটি টেলিভিশন চ্যানেলে তিনি প্রফুল প্যাটেলের […]

Continue Reading

লাক্ষাদ্বীপের প্রশাসক প্রফুল প্যাটেলের ‘জনবিরোধী’ নীতির বিরুদ্ধে বিক্ষোভে সামিল দ্বীপবাসীরা

বিশেষ সংবাদদাতা, ৮ জুন,২০২১ : ছয়-সাত মাস আগে ২০২০ সালের ৫ ডিসেম্বর, রাষ্ট্রপতির অনুমোদনে কেন্দ্রীয় সরকার লাক্ষাদ্বীপের প্রশাসক হিসাবে আরএসএস ঘনিষ্ঠ প্রফুল খোদা প্যাটেলকে নিযুক্ত করে। ভারতীয় জনতা পার্টির (বিজেপি) প্রাক্তন নেতা প্যাটেল ছিলেন ২০১০ সালে গুজরাতের মুখ্যমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী সরকারের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। মোদীর ঘনিষ্ঠ এই নেতাকে লাক্ষাদ্বীপের প্রশাসক করার পিছনে সংঘ পরিবারের কিছু কৌশল আছে […]

Continue Reading

ভোট দিন বিজেপির বিরুদ্ধে – আসামে এবং বাংলায়

সংসদীয় গণতন্ত্রের কতগুলি ভান আছে। যেমন কারও বিরুদ্ধে ভোট দেওয়া যায় না। সব সময় কারও পক্ষে ভোট দিতে হয়। তাই কার পক্ষে ভোট, এই নির্বাচনটা জরুরী। পশ্চিমবঙ্গ এবং আসামে পক্ষ নির্বাচনটা দুরূহ। এবং দুটি রাজ্যের গুণগত এবং মানগত অবস্থান আলাদা। তবু আলোচ্য যেখানে বিজেপি, সেখানে এই দুটি প্রদেশের একটি অবস্থানগত সাদৃশ্য ও রয়েছে। চরিত্র অনুযায়ী বিজেপি শুধু ধর্ম-সাম্প্রদায়িক নয়, ভাষা-সাম্প্রদায়িক ও বটে। দুই রাজ্যেই বিজেপি মুসলিম এবং বাঙালী বিদ্বেষী। কারণ সাম্প্রতিকতম এনআরসি এবং সিএএ অর্থাৎ বিদেশী অনুপ্রবেশ এর সম্ভাব্য রাষ্ট্র হিসেবে ধরা হচ্ছে বাংলাদেশকে এবং খুব স্বাভাবিকভাবেই প্রাক-এনআরসি / সিএএ পর্বে সারা ভারতবর্ষের সর্বত্র এদেশী ওদেশী (প্রমাণিত হয় নি যে) সব বাঙালীকেই সন্দেহের চোখে দেখার বাতাবরণ সৃষ্টি করেছে এই দল।

Continue Reading

ডুয়ার্স-তরাই-পাহাড়ে শুরু হল শ্রমজীবী অধিকার অভিযান

নিজস্ব সংবাদদাতা, ৭ই ফেব্রুয়ারি: গত ৬ ই ফেব্রুয়ারি সকাল ১০টা নাগাদ সংকোশ থেকে উত্তরবঙ্গের সারা তরাই ও ডুয়ার্সব্যপী শুরু হল শ্রমিক অধিকার অভিযান। গতকাল ছিল অভিযানের প্রথম দিন। এইদিন এই অভিযান কার্তিক চা বাগান পর্যন্ত পৌঁছয়।   এই অভিযান কেন্দ্রীয় সরকারের লাগু করা শ্রমকোড ও কৃষি আইনের বিরুদ্ধে শ্রমজীবী মানুষের স্বার্থরক্ষার দাবিতে সংগঠিত হচ্ছে। বক্তব্য […]

Continue Reading

অমিত শাহঃ ২০১৪-র পর ‘আচ্ছে দিন’ কি শুধুই নেতাদের জীবনে?​

জনগণের জন্য “আচ্ছে দিন”এর প্রতিশ্রুতি দিয়ে ২০১৪ সালে কেন্দ্রে সরকার গঠন করে ভারতীয় জনতা পার্টি ও অন্যান্য দলের জোট ন্যাশনাল ডেমোক্রেটিক অ্যালায়েন্স। ওই বছরেই বিজেপির নেতৃত্বাধীন কেন্দ্রীয় সরকার স্বচ্ছ ভারত অভিযানের কর্মসূচি ঘোষণা করে। বিজেপি দলের তাবড়-তাবড় সব নেতা-মন্ত্রীদের দিকে তাকালে আমরা দেখব ২০১৪ সালের আগেও যাদের রাজনৈতিক জীবনে স্বচ্ছতার রীতিমতো অভাব ছিল, ২০১৪-র পর তাদের জন্য সত্যিই যেন এসে গেল ‘আচ্ছে দিন’।

Continue Reading