সাত দিনের পুলিশ হেপাজত : টিপু সুলতানের মুক্তির দাবিতে সোচ্চার বিভিন্ন সংগঠন

আজকের খবর বিশেষ খবর রাজ্য

Last Updated on 1 week by admin

নিজস্ব প্রতিনিধি, ১৪ অক্টোবর, ২০২১ :  

বীরভূমের বোলপুরের বাসিন্দা ও গণ আন্দোলনের কর্মী টিপু সুলতানকে গ্রেপ্তারের প্রতিবাদে সামিল হয়েছেন গণ আন্দোলন ও অধিকার আন্দোলনের কর্মীরা। বিভিন্ন সংগঠন প্রেস বিবৃতির পাশাপাশি রাস্তায় নেমে প্রতিবাদে সামিল হয়েছেন।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য যে গত ১২ সেপ্টেম্বর রাত সড়ে এগারোটা – বারোটা নাগাদ বীরভূমের বোলপুরের গুরুপল্লীর বাসিন্দা টিপুকে কয়েকজন সাদা পোশাকের পুলিশ বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে যায়। বাড়িতে টিপু সুলতানের দাদু ছাড়া রাতে আর কেউ ছিলেন না। তুলে নিয়ে যাওয়ার সময় তাঁকে বা তাঁর দাদুকে কোনও অ্যারেস্ট মেমো দেখানো হয় নি বলে অভিযোগ। ১৩ তারিখ সকাল থেকে দুপুর তাঁর আত্মীয়-স্বজনরা বোলপুর থানায় ও অন্যান্য পুলিশ কর্তাদের সাথে যোগাযোগ করলেও পুলিশ কিছুই জানায় নি বলে তাঁরা জানিয়েছেন। বোলপুর থানায় টুপুর দাদুকে জানানো হয় যে তাঁরা কাউকে আগের রাতে অ্যারেস্ট বা ডিটেনইড করেন নি। এমনকি, তুলে নিয়ে যাওয়ার ২৪ ঘন্টার মধ্যে কোনো আদালতে হাজির‌ও করা হয় নি বলে অভিযোগ এসেছে। গতকাল বিকালে বোলপুর থানা থেকে জানানো হয় যে তাকে বেলপাহাড়ি থানার পুরোনো মামলায় (কেস নং ১১/২০১৬। তারিখ-২৯/০১/২০১৬) গ্রেফতার করেছে পুলিশ। তাঁকে ইউএপিএ ধারাও দেওয়া হয়েছে। এই খবর বোলপুর থানা টিপু সুলতানের বাবাকে চিঠি দিয়ে জানিয়েছে।

আজ ঝাড়গ্রাম আদালতে তোলা হলে – টিপু সুলতানকে পুলিশ কাস্টডিতে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছে আদালত। টিপু সুলতানের আইনজীবি তাঁর জামিনের আবেদন জানালে, সরকারি আইনজীবি জামিনের বিরোধীতা করে ১৪ দিনের পুলিশ কাস্টডিতে রাখার আবেদন জানান। বিচারক তাঁকে ৭ দিন পুলিশ কাস্টডিতে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

মানবাধিকার সংগঠন এপিডিআর, বন্দীমুক্তি কমিটি, সিআরপিপি, ফ্যাসিস্ট আরএসএস-বিজেপির বিরুদ্ধে বাংলা ও অন্যান্য ছাত্র-যুব সংগঠন টিপু সুলতানের গ্রেপ্তারিকে বে আইনি বলে উল্লেখ করেছে। বন্দীমুক্তি কমিটি জানিয়েছে, “২০১৮ সালে গোয়ালতোর থানা টিপু সুলতানকে গ্রেফতার করেছিল। তখনও পশ্চিমবঙ্গ সরকার বলে নি টিপু সুলতানের বিরুদ্ধে ২০১৬ সালের মামলা আছে। বন্দীমুক্তি কমিটি মনে করে মামলাটি ভুঁয়ো। তাই বন্দীমুক্তি কমিটি অবিলম্বে টিপু সুলতানের নিঃশর্ত মুক্তি দাবি করছে।“

সিআরপিপি এক প্রেস বিবৃতিতে জানিয়েছে যে টিপুকে যেভাবে গ্রেপ্তার করা হয়েছে তা আইন বিরুদ্ধ। তাঁরা বলেছেন, “আমরা সিআরপিপিপি থেকে পুলিশের এই বে-আইনি কর্মকান্ডের নিন্দা জানাই।“

ফ্যাসিস্ট আরএসএস-বিজেপির বিরুদ্ধে বাংলা পক্ষে জানানো হয়েছে  “মামলাটিতে টিপুকে ভুয়ো ভাবে যুক্ত করা হয়েছে। আরো উদ্বেগজনক হল, ফ্যাসিস্ট বিজেপির বিরুদ্ধে গণতন্ত্র রক্ষার পক্ষে লড়াই চালাচ্ছে বলে দাবি করছে যে সরকার, সেই সরকারই বিজেপির কায়দায় ন্যায়বিচারের দাবিতে প্রতিবাদরত বিক্ষোভকারীদের অন্যতম টিপুকে মিথ্যা মামলায় গ্রেপ্তার শুধু করলো তা-ই নয়, ইউএপিএ-এর তিনটি ধারায় অভিযুক্তও করেছে।“

কয়েকদিন আগে সংসদের সমস্ত বিরোধী দল দেশজুড়ে UAPA-র বিরুদ্ধে স্মারকলিপি দিয়েছে। ‘জনবিরোধী’ তিনটি কৃষি আইন বাতিলের দাবিতে  আন্দোলনরত কৃষকদের বিরুদ্ধে NIA লেলিয়ে দেওয়ার বিরুদ্ধে, CAA-বিরো্ধী আন্দোলনকারীদের UAPA দেওয়ার বিরুদ্ধে বিরোধী দলগুলি একসাথে বিবৃতি দিয়েছে। তাতে তৃণমূল কংগ্রেসও ছিল। তাই মানবাধিকার সংগঠনগুলির বক্তব্য, “ফ্যাসিস্ট RSS-বিজেপির বিরুদ্ধে সোচ্চার রাজ্য সরকার কেন্দ্রীয় সরকারের কায়দা ব্যবহার করছে।“ তাতে তাঁদের মনে এই রাজ্য সরকারের বিজেপি-র বিরুদ্ধে লড়াইয়ের যাথার্থতা নিয়ে সন্দেহ দেখা দিচ্ছে। তাঁরা জানাচ্ছেন, “টিপু সুলতানকে গ্রেপ্তারের পুরো প্রক্রিয়া, মিথ্যা মামলা দেওয়া, শিশুধর্ষণ ও হত্যার বিরুদ্ধে ন্যায়বিচারের সপক্ষে আন্দোলনকে রাষ্ট্রীয় ভয়-ভীতি দেখানো ইত্যাদি পুরোটাই ফ্যাসিস্ট পদ্ধতি, যা আমরা দ্ব্যর্থহীন ভাবে নিন্দা করছি এবং টিপু সুলতানের অবিলম্বে নিঃশর্ত মুক্তি দাবি করছি।“

এপিডিআর আজ ঝাড়গ্রামের পুলিশ সুপারের কাছে এক স্ম্রকলিপি দিয়েছে। এই স্মারকলিপিতে তাঁরা পুলিশ সুপারের কাছে দাবি জানিয়েছেন যে পুলিশ হেপাজতে টিপু সুলতানের ওপর যাতে কোনরকম শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন না করা হয়।

Please follow and like us:
error16
fb-share-icon0
Tweet 20
fb-share-icon20
Tagged
No Thoughts on সাত দিনের পুলিশ হেপাজত : টিপু সুলতানের মুক্তির দাবিতে সোচ্চার বিভিন্ন সংগঠন

Leave A Comment