সামাজিক মাধ্যমে লিখে ‘ইউএপিএ’-তে অভিযুক্ত হলেন সাংবাদিক

আজকের খবর বিশেষ খবর রাজনীতি

Last Updated on 3 weeks by admin

নিজস্ব সংবাদদাতা, ৭ নভেম্বর, ২০২১:  

বিজেপি শাসিত ত্রিপুরায়, বিশ্ব হিন্দু পরিষদ সহ বিভিন্ন হিন্দুত্ববাদী শক্তি  মুসলিম সম্প্রদায়ের  উপর অত্যাচার চালাচ্ছে বলে অভিযোগ। এই হিংসার ঘটনার একটি তথ্য অনুসন্ধান দলের সাথে তদন্ত করতে গেলে আনসার ইন্দরী ও মুকেশ সহ চার আইনজীবীকে ‘UAPA’ আইনে অভিযুক্ত করে নোটিশ পাঠানো হয়। গতকাল ফের, শ্যাম মীরা সিং নামের এক সাংবাদিককে ‘UAPA’ আইনে অভিযুক্ত করা হয়েছে । তিনি নিজের টুইটার একাউন্টে , ত্রিপুরায় বেড়ে চলা সাম্প্রদায়িক হিংসা সংক্রান্ত ঘটনার প্রতি দৃষ্টি আকর্ষণ করে  একটি টুইট করেছিলেন। এটাই তাঁর ‘অপরাধ’!

ত্রিপুরায় সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের বিরুদ্ধে হিংসার ঘটনার বিরুদ্ধে ও পুলিশি নিষ্ক্রিয়তা নিয়ে সরব হওয়ার পর  প্রায় ১০২ জনকে ‘UAPA ‘ আইনে অভিযুক্ত করা হয়েছে।

বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমের রিপোর্ট অনুযায়ী, ১৫টি মসজিদে ও দোকানে অগ্নি সংযোগের ঘটনা ছাড়াও  বিভিন্ন জায়গায়  সম্পত্তি নাশের ঘটনা ঘটেছে। সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের ওপর এই হিংসার ঘটনায় এখনো পর্যন্ত বহু খবর উঠে এসেছে ত্রিপুরা সহ বিভিন্ন সর্বভারতীয় সংবাদ মাধ্যমে। সংবাদমাধ্যমের কর্মীরা তাদের প্রতিবেদনে  বিভিন্ন হিংসার ঘটনার ভিডিও ক্লিপ প্রকাশ করে পুলিশি নিষ্ক্রিয়তার প্রসঙ্গটি সামনে আনলে, ত্রিপুরা পুলিশ থেকে তাদের বিরুদ্ধে শাস্তি মূলক ব্যবস্থা গ্রহণেরও হুমকি দেয়া হয় ।

 

প্রসঙ্গত শ্যাম মীরা সিং নিজের টুইটার হ্যান্ডেল থেকে ” Tripura is burning! ” এই তিনটি শব্দই শুধু লেখেন। এর পর তাঁর সমাজ মাধ্যমের (social media) অ্যাকাউন্ট থেকে জানা যায় যে ত্রিপুরা পুলিশ তাঁর এই টুইটের  জন্য তাঁকে ‘UAPA’ আইনে অভিযুক্ত করেছে ।

বিভিন্ন মহলের সমাজ ও রাজনৈতিক কর্মীরা মনে করছেন যে বিজেপি সরকারের দেশের আইন ও সংসদকে ব্যবহার করে, বিভিন্ন শাস্তিমুলক পদক্ষেপের মাধ্যমে দেশের মানুষের কণ্ঠরোধ করছে। তাঁরা সরকারের এই অগণতান্ত্রিক পদক্ষেপের তীব্র নিন্দা করছেন।

‘এডিটরস গিল্ড অফ ইন্ডিয়া’  আজ এক বিবৃতিতে জানিয়েছে যে ত্রিপুরার রাজ্য সরকার হিংসাকে নিয়ন্ত্রণ করার সদিচ্ছা দেখাচ্ছে না। সরকার নিজের  ব্যর্থতাকে ঢাকতেই যথেচ্ছভাবে সামাজিক আন্দোলনের কর্মী  ও সাংবাদিকদের ওপর  ‘UAPA’ প্রয়োগ করছে।

তবে শ্যাম মীরা সিং সমাজ মাধ্যমে জানিয়েছেন, সত্য এবং ন্যায়ের বিচারের পক্ষে তিনি সবসময় কথা বলবেন। শুধু ‘UAPA ‘ নয় পূর্বেও  প্রধানমন্ত্রী ও বিজেপি সরকারের  বিভিন্ন নীতির  সমালোচনা করে টুইট করার ‘অপরাধে’ এই সাংবাদিককে ‘আজ তক’ চ্যানেলে কর্মরত থাকা কালীন গত জুলাই মাসেই বরখাস্ত করে ‘ ইন্ডিয়া টুডে’ গ্রুপ ।

ত্রিপুরায় বাড়তে থাকা সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের ওপর হিংসার ঘটনার প্রতিবাদে দিল্লির ত্রিপুরা ভবনের সামনে বিক্ষোভ-সমাবেশ  করেন বিভিন্ন মানবাধিকার সংগঠন ও ছাত্র সংগঠন।  ত্রিপুরা পুলিশের নিষ্ক্রিয়তার প্রতিবাদ তাঁরা করেন। সাংবাদিক ও বিভিন্ন স্তরের সমাজকর্মীরা  আজও ‘Tripura is burning’ এই হ্যাসট্যাগ ব্যবহার করে সমাজ মাধ্যমে সরব থেকেছেন ।

Please follow and like us:
error17
fb-share-icon0
Tweet 20
fb-share-icon20
Tagged
No Thoughts on সামাজিক মাধ্যমে লিখে ‘ইউএপিএ’-তে অভিযুক্ত হলেন সাংবাদিক

Leave A Comment